1. jagonewsnarsingdi@gmail.com : nurchan :
শনিবার ৮ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ বিকাল ৩:২৪

নরসিংদীতে সিডিউল মোতাবেক উন্নয়ন কাজ করতে বলায় হামলা!

  • প্রকাশিতঃ সোমবার, ৩ মে, ২০২১
  • ৯৪ বার

নিজস্ব প্রতিবেদক

নরসিংদীর চরাঞ্চলে সিডিউল মোতাবেক উন্নয়ন কাজ করতে বলায় ঠিকাদারের লোকজন কর্তৃক মারধর, হুমকি- ধমকিসহ বাড়ী-ঘরে হামলার ঘটনা ঘটেছে। গত শনিবার রাতে নরসিংদী সদর উপজেলার আলোকবালী ইউনিয়নের মুরাদনগর গ্রামে এ হামলার ঘটনা ঘটে। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. আসাদ উল্লাহ উস্কানিতে এঘটনা ঘটানো হয়েছে বলে ভুক্তভোগিরা দাবী করেন।

জানা যায়, আলোকবালী ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের মুরাদনগর গ্রামের চাঁন মিয়া হাজী বাড়ি হতে, এম এ সহিদ হাই স্কুল পর্যন্ত রাস্তার কাজ অনিয়ম হচ্ছে দেখে স্থানীয় ইউপি সদস্য রায়হান মেম্বার সিডিউল অনুযায়ী কাজ করার জন্য ঠিকাদার জয়নাল মিয়াকে অনুরোধ করেন। কিন্তু এতে বাধ সাধে স্থানীয় হান্নান মেম্বারের ছেলে ইসহাক। সে ঠিকাদারের পক্ষ নিয়ে রায়হান মেম্বার ও তার লোকজনদের মারধরের হুমকি প্রদান করে।

পরে নজরুল নামে রায়হান মেম্বারের এক নিকট আত্মীয় বিষয়টি নিয়ে মোবাইল ফোনের ফেইসবুকে লাইভ দিলে ইসহাক আরো বেশী উত্তেজিত হয়ে পড়ে এবং তার সহযোগি আইনুল, আনিছ, খোরশেদ, খায়রুল, আজিজ ও হিমেলসহ ১৫/২০জন সন্ত্রাসী মিলে নজরুলকে মারধর করে।

তারা এখানেই ক্ষান্ত হয়নি। এঘটনায় তারা রায়হান মেম্বারের সমর্থক লিটনের বাড়ীর ভিতর ঢুকে তাকেও মারধর করে। শুধু তাই নয় এই সন্ত্রাসীবাহিনী রায়হান মেম্বারের অপর সমর্থক আমীর হোসের বাড়ীতেও হামলা চালায়। এসময় আমীর হোসেন ঘরের দরজা লাগিয়ে ঘুমন্ত অবস্থায় ছিল। সন্ত্রাসী ঘরের দরজা ভেঙ্গে ঘুমন্ত আমীর হোসেন ও তার স্ত্রীকে বেদম মারধর করে। এতে আমীর হোসেনের স্ত্রীর হাতের হাড় ভেঙ্গে যায়। তারা বর্তমানে নরসিংদী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। সন্ত্রাসীরা আমীর হোসেন ও তার স্ত্রীকে মারধর করার সময় চেচিয়ে বলতে থাকে ‘তোদের অনেক ভার বেড়েছে, আসাদ ভাই বলেছে তোদেরকে শায়েস্থা করতে।’

উল্লেখ্য আসাদ ভাই হলো আলোকবালি ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক।এড. আসাদউল্লাহ এলাকায় নিজের আধিপত্য বিস্তারে দীর্ঘদিন ধরে এলাকাবাসীর মধ্যে বিভিন্ন ভাবে একে অপরের সাথে ঝগড়া-বিবাদ লাগিয়ে রাখেন। তার বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে গেলেই তার পালিত সন্ত্রাসী বাহিনী তাদের উপড় হামলা চালায়। এছাড়াও বিভিন্ন রকমের মামলায় জড়িয়ে তাদেরকে গ্রাম ছাড়া করে।গোটা আলোকবালিবাসী আজ তার ও তার সন্ত্রাসীবাহিনী ভয়ে তটস্থ।

এব্যাপারে ঠিকাদার জয়নাল মিয়ার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, সিডিউল অনুযায়ীই কাজ করছি। ইট সলিংয়ের পরে যদি মাটি নাই থেকে থাকে তবে সলিং কিভাবে হবে। আর আমার ব্যাপারে রায়হান মেম্বার বা তার লোকজনকে মারধর করার বিষয়টা আমার জানা নেই।

এ ব্যাপারে এড. আসাদউল্লাহ বলেন , ‘এঘটনায় উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে আমাকে এবং আমার আত্মীয় স্বজনকে জড়ানো হয়েছে। থানা পুলিশ ঘটনার তদন্ত করেছে, প্রয়োজনে তাদের কাছ থেকে জানতে পারেন।’

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
আরো খবর.
© জাগো নরসিংদী ২৪ আইটি সহায়তাঃ সাব্বির আইটি
Customized By BlogTheme