খোলা মত

আমাদের সুন্দর গ্রাম দত্তেরগাঁও

  জাগো নরসিংদী ৯ অক্টোবর ২০২১ , ৪:৫৯:অপরাহ্ণ অনলাইন সংস্করণ

নূরুদ্দীন দরজী

প্রকৃতির শ্যামল ছায়া আর মানুষে মানুষে মমতা ভরা আমাদের গ্ৰাম দত্তেরগাঁও। গ্ৰামকে কেন্দ্র করে প্রকৃতি এখানে যেন হয়েছে অবারিত। ছড়িয়ে দিয়েছে মমতার ছোঁযা। এ গ্ৰাম আমাদের সোনার বাংলার এক সৌন্দর্য মন্ডিত রূপের সমাহার। এখানে বিরাজিত মানুষে মানুষে সম্প্রীতি, সহানুভুতি, মমতা,ও ভালোবাসার নিবিড় বন্ধন। এ গ্ৰাম সবুজের মোহনীয় সমারোহে আচ্ছাদিত।

নরসিংদীর শিবপুর উপজেলা সদর  হতে প্রায় এক কিলোমিটার পশ্চিম থেকে শুরু হয়ে গ্ৰামটি আঁকাবাকা রূপ নিয়ে পূর্ব পশ্চিমে পাঁচ ও উত্তর-দক্ষিণে ও চার কিলোমিটারে হয়েছে বিস্তৃত। দক্ষিণে মাঠের বন্দের দক্ষিণা বাতাসে এ গ্ৰাম দোলে আপণ ছন্দে। গ্ৰীষ্ম, বর্ষা, শরৎ হেমন্তে চিরায়ত প্রকৃতি এখানে ফেলে প্রশান্তির ছায়া। ক্ষণে ক্ষণে দক্ষিণের মৃদুমন্দ সমীরণে গ্ৰামবাসীর জুড়িয়ে যায় প্রাণ। শীতের কুয়াশা আর কনকনে হিমেল হাওয়ায় আবিষ্ট করে গ্ৰামের মানুষকে। পরিতৃপ্তিতে তারা হয় মোহাবিষ্ট। বসন্তের ফুলে ফুলে ছেয়ে যাওয়া আবেশে মানুষের মনে জাগায় আনন্দ শিহরণ। এ গ্ৰামের মাঠে মাঠে ফলে সোনার ফসল। কৃষকেরা জেগে উঠে সজীব প্রাণে।

গ্ৰামের রয়েছে বৃহত্তর পরিসর। এক‌ই প্রাণের স্পন্দনে পাড়ায় পাড়ায় ও সাতটি পাড়ায় বিভক্ত। আপদে-বিপদে আপণজনদের ডাকে সাড়া দেয় সকল পাড়া। ঝাঁপিয়ে পড়ে একে অপরের প্রয়োজনে। সুপ্রশস্ত রাস্তা দ্বারা এক বৃন্তে যেন বেঁধে রেখেছে পুরো গ্ৰামকে। ঐতিহ্যে ভরপুর এ গ্ৰাম। আথিয়েতায় মুগ্ধ করে সকলে সকলকে। মেহমানের আগমনে আমরা হ‌ই ধন্য। খালি মুখে কার ও বাড়ি থেকে কেউ যেতে পারেনা সহসা। সাধ্যমত করি মেজবানের সেবা।

একাধিক উচ্চ ও অনেকগুলো প্রাথমিক পর্য্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে খোলামেলা পরিবেশে আছে শিক্ষার সুব্যবস্থা। মাদ্রাসা শিক্ষার আবাসভূমি আমাদের এ দত্তেরগাঁও। সুনামে চল সকল মাদ্রাসা। হামিও সুন্নাহ মাদ্রাসাটি আজ নরসিংদীন জেলার শ্রেষ্ঠ মাদ্রাসায় পরিনত। অনেক অনেক মসজিদে প্রতিনিয়ত সুমধুর কন্ঠে ধ্বনিত হয় আজানের সুর। ঈদ পার্বণে,ওয়াজ মাহফিলে বয়ে চলে ধর্মীয় গাম্ভীর্যে আনন্দের ধারা। মন্দিরে বাজে কাসর ঘন্টা। মেয়েরা দেয় উলু ধ্বনি।দূর্গা পূজায় অসুরের বিনাশে করে দেবীর বন্দনা। আমরা হয়ে যাই ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে একে অপরের কাছাকাছি। হয়ে যাই আপণে আপণ।

বুক ফুলিয়ে ঐতিহ্য নিয়ে রয়েছে আমাদের,দত্তেরগাঁও কাচারী,। আছে শিমুলতলা, বন্দর, শাহাবুদ্দীন বাজার,চৌঘরিয়ার মোড়সহ অনেক মিলন মেলার স্হান। অনেক স্বনামে ধন্য লোক আছেন এ গ্ৰামে। শিবপুর সরকারি শহীদ আসাদ কলেজ এর প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল নূরুল ইসলাম খান ওরুপে শাহজাহান প্রিন্সিপাল দত্তেরগাঁও এর‌ই সন্তান। আছেন অনেক বীর মুক্তিযোদ্ধা-যারা দেশকে ভালোবেসে অসীম সাহসে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন ৭১’এর রণাঙ্গনে।

দত্তেরগাঁও গ্ৰামটি আমরা ভালোবাসি। এ গ্ৰাম আমাদের প্রাণ, আমাদের জীবন। যে যেখানেই থাকি অন্তরে থাকে শুধুই দত্তেরগাঁও। প্রাণপ্রিয় গ্ৰাম দত্তেরগাঁও, এর জন্য স্বরচিত কবিতাংশ দিয়ে শেষ করবো লেখাটি।

একটি সুন্দর গ্রাম
————————–
কত যে সুন্দর আমার গ্ৰাম দত্তেরগাঁও,
বেড়াতে এসে বন্ধুরা একটু দেখে যাও।
অনেক বড়  গ্রাম আছে সাতটি পাড়া,
একদিকে ডাক পেলে পড়ে যায় সাড়া।
পাড়ায় পাড়ায় রয়েছে মানুষ সুন্দর,
আদর স্নেহ ভালোবাসায় ভরা যে অন্তর।
বৃক্ষলতা খালবিল সাজানো বাড়িঘর,
চাঁদের আলোয় হাসে পথ ও প্রান্তর।
ধনী গরিব নির্বিশেষে সকলে সমান,
হিন্দু-মুসলিম মিলে গাহি সাম্যের গান।
যার গ্ৰাম তার কাছে জানি অধিক শ্রেয়,
জন্মভূমি সবার কাছে স্বর্গ হতে ও প্রিয়।
যে গ্ৰামে জন্মে পেয়েছি ধন্য এ জীবন,
এ গ্ৰামেই প্রভু তুমি দিও আমায় মরণ।

লেখক : সাবেক উপজেলা শিক্ষা অফিসার (টিইও)